কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে সরকার দুরভিসন্ধি করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেছেন, খালেদা জিয়ার অবস্থা অত্যন্ত সংকটাপন্ন। তার জীবন হুমকিতে এবং তার সুস্থ অবস্থায় ফিরে না আসার আশংকা দেখা দিয়েছে। সবাই দেখেছে, তাকে যখন কারাগারে নেওয়া হয়েছিল তখন তিনি একেবারে সুস্থ ছিলেন। এখন তিনি বিছানা থেকে উঠতে পারেন না, নিজের খাবার খেতে পারেন না। তিনি একপা হাটতেও পারেন না।

রোববার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনটির নেতা-কর্মীদের নিয়ে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা জানানোর পর তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে খালেদা জিয়ার যথাযথ চিকিৎসা সম্ভব নয়। এ কারণে তারা বার বার বলেছেন-তার জামিন প্রাপ্য। সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে দুরভিসন্ধির মাধ্যমে তার জামিন আটকে রেখেছে।

খালেদা জিয়াকে জামিন পেলে স্বজনরা তাকে বিদেশ নিয়ে যেতে চান বলে গত শুক্রবার গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়া জামিন পেলে তার ইচ্ছামতো যেখানে মনে করবেন, সেখানে গিয়ে চিকিৎসা নেবেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এমন এক সময় যুবদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হচ্ছে যখন দেশে গণতন্ত্র নেই। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থেকে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। তারা গণতন্ত্রকে হরণ করে গণতন্ত্রের নেত্রীকে অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় কারারুদ্ধ রেখে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে। সামগ্রিকভাবে দেশে যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, তাতে স্পষ্ট বুঝা যায়, এই সরকার দেশ পরিচালনায় পুরোপুরি ব্যর্থ। কারণ এই সরকার বৈধ নয়, জনগণের কোনো ম্যান্ডেট তাদের নেই। তারা এই দেশকে ব্যর্থ রাষ্টে পরিণত করতে চলেছে।