গত ২৫ জুন সোমবার সন্ধ্যায় লস এঞ্জেলেসের লিটল বাংলাদেশস্থ বাংলাদেশ একাডেমীর মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হল সাবডিভিশন নির্বাচন পরবর্তী করণীয় শীর্ষক মতামত সভা।
উল্লেখ্য, সাবডিভিশন নির্বাচনের ফলাফল ছিল, বাংলাদেশী কমিউনিটির পক্ষে ২৮২টি ভোট পড়ে এবং কোরিয়ান কমিউনিটির পক্ষে ১৮৮৪৪টি ভোট। এর ফলে লিটল বাংলাদেশ কমিউনিটির মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয় ও কোরিয়ান কমিউনিটির কাছ থেকে ভোগান্তির খবর আরও উদ্বিগ্ন করে তোলে। কমিউনিটির সুবিধার কথা চিন্তা করে লিটল বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব কমিউনিটির প্লাটফর্ম হিসেবে সাবডিভিশন নির্বাচনের পরবর্তী করণীয় বিষয়ক মতামত সভার আয়োজন করে।

সভার সভাপতিত্ব ও পরিচালনা করেন সংগঠনের সভাপতি কাজী মশহুরুল হুদা। মতামত সভায় বক্তব্য রাখেন- নাঈম হাবিব, শামিম হোসেন ড্যানী তৈয়বা, আবুল ইব্রাহিম, ফিরোজ আলম, অপু সাজ্জাদ, শহিদুল ইসলাম, আশরাফ আকবর, নাজমুল চৌধুরী, ফয়সাল আহম্মেদ, মোহম্মদ আলম, ইউনূস জামান, লস্কর আল মামুন প্রমুখ।
মতামত সভায় কমিউনিটির অনেকেই নির্বাচনের ব্যবস্থাপনায় একক নেতৃত্বের কারণে ফলাফল দায়ি হিসেবে অভিযোগ করে। তারা অভিমত ব্যাক্ত করতে গিয়ে কোরিয়ান কমিউনিটির সঙ্গে সমঝোতার ভিত্তিতে এগুনোর পক্ষপাতি ছিল বলে জানান।

প্রস্তাবিত লিটল বাংলাদেশ নেবারহুড কাউন্সিলের সীমারেখা ছিল হেরে যাওয়ার প্রধান কারণ বলে অনেকেই উল্লেখ করেন। অভিযোগ উত্থাপিত হয়, উক্ত সাবডিভিশন নির্বাচনের জন্য ইতিমধ্যে কোরিয়া টাউনে বসবাসরত বাংলাদেশী কমিউনিটি এবং ব্যাবসায়ী ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছেন। মো: আলম অভিযোগ করে বলেন, লিটল বাংলাদেশ কমিউনিটিতে নির্বাচিত কোন নেতা না থাকার ফেলে যে কেউ সিটির সাথে যোগাযোগ করে নিজেকে কমিউনিটির প্রতিনিধিত্বকারী হিসেবে কমিউনিটিকে ইচ্ছামতন ব্যাবহার করছে এগুলো রোধ করা হোক। জনাব নাঈম হাবিব প্রস্তাবদেন, বাংলাদেশ কন্সুলেট জেনারেল ও কোরিয়ান কন্সুলেট জেনারেলের মাধ্যমে আসন্ন সমস্যার সমাধান করা উচিত। পরিশেষে মতামত সভার সম্মতিক্রমে লিটল বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবকে কো অর্ডিনেটর হিসেবে দুটি প্রস্তাব গৃহীত হয়।

এক. প্রেস ক্লাব কন্সুলেট জেনারেলের মাধ্যমে দুই কমিউনিটির বিশিষ্টদের সঙ্গে বৈঠকে বসে বিষয়টির নিস্পত্তির উদ্যোগ গ্রহণ করা।
দুই. কমিউনিটিতে নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধি প্রণয়ন করা যার মাধ্যমে কমিউনিটির কন্ঠ মূলধারায় পৌঁছানো হবে এবং যারা অফিসিয়ালি কমিউনিটির প্রতিনিধিত্ব করবে।

এই বিষয়ে প্রেসক্লাব পরবর্তীতে টাউন হলের মাধ্যমে লিটল বাংলাদেশ কমিউনিটি কমিটি গঠিত হবে এবং নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধি নির্বাচিত হবে।