দেশে-বিদেশে আলোচিত বন্দুকযুদ্ধের আট দিন পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ফোন এসেছে নিহত টেকনাফের কাউন্সিলর একরামুলের স্ত্রী আয়েশা বেগমের কাছে। রবিবার বিকেল ৫টার দিকে আয়েশা একটি ফোন পান। ফোনকারী নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে আয়েশা বেগমকে বলেন, তাঁর (আয়েশা) সঙ্গে আবারও যোগাযোগ করে ঘটনার বিস্তারিত জেনে নেবেন।

এদিকে একরামুল হক নিহত হওয়া প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘তদন্তে একরাম নির্দোষ প্রমাণিত হলে তাঁকে যারা দোষী সাব্যস্ত করেছে, তারাই দোষী সাব্যস্ত হবে। তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন নেওয়া হবে। একরাম কে—এ প্রশ্নের জবাব চাই। তিনি আমাদের যুবলীগের সভাপতি। আমাদের লোক আমরা মেরে ফেলব?’

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর আস্থা রাখতে হবে। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানও বলেছেন, কোনো হত্যাকাণ্ডই তদন্তের বাইরে নয়। কেউ নিহত হওয়াটাও কাম্য নয়।

একরাম নিহত হওয়ার ঘটনায় তদন্ত হচ্ছে বলে জানান তিনি। এ ছাড়া তিনি জানিয়েছেন মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হকের নিহত হওয়ার ঘটনা নিয়ে প্রকাশিত অডিও হাতে পেয়েছেন। ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে তদন্ত চলছে।

তিন দিন ধরে একরামের স্ত্রী আয়েশা বেগম দুই মেয়ে তাহিয়া ও নাহিয়ানকে নিয়ে চট্টগ্রামে মায়ের ভাড়া বাসায় রয়েছেন। পরিবারটি এখনো শোকে মূহ্যমান। বাবার জন্য কাঁদতে কাঁদতে অষ্টম শ্রেণি ও ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া দুই মেয়ে এখনো শয্যাশায়ী বলে জানিয়েছেন আয়েশা বেগম।

একরামুলের স্ত্রী জানান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তাও ফোন করে তাঁর সঙ্গে কথা বলেছেন। ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মন্ত্রণালয় ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিতে তাঁর (আয়েশা) সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখবে। জানা যায়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে একরামুলের স্ত্রীর যোগাযোগ করিয়ে দিয়েছেন কক্সবাজার জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও কক্সবাজার পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরী।