যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (সিআইএ) প্রথম নারী পরিচালক হিসেবে জিনা হ্যাসপলকে অনুমোদন দিয়েছে দেশটির সিনেট। ডোনাল্ড ট্রাম্প মনোনীত জিনা হ্যাসপলের কর্মকাণ্ড নিয়ে নানা বিতর্ক থাকার পরও সিআইএ’র প্রধান হিসেবে তাকেই বেছে নিলো দেশটি। বৃহস্পতিবার সিনেট সদস্যরা তাকে অনুমোদন দেয়। মাইক পম্পেও সিআইএ প্রধানের দায়িত্ব পালতরত অবস্থায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী হলে সম্প্রতি পদটি খালি হয়।

৬১ বছর বয়সী হ্যাসপলের তিন দশকের ক্যারিয়ারের একটি বড় অংশ কেটেছে আন্ডার কাভার এজেন্ট হিসেবে। ৯/১১ হামলার পর ২০০২ সালে তাকে থাইল্যান্ডে সিআইএর এক বন্দিশিবিরের দায়িত্ব দেয়া হয়। ওই বন্দিশিবিরে ওয়াটারবোর্ডিংয়ের (কাপড়ে মুখ বেঁধে পানি ঢালা, যাতে বন্দির ডুবে যাওয়ার অনুভূতি হয়) মত বিতর্কিত পদ্ধতি প্রয়োগ করে নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়া নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ারে হামলা-পরবর্তী সময়ে জিজ্ঞাসাবাদ কর্মসূচিতে তার ভূমিকা বিতর্কের জন্ম দিয়েছিল। বিরোধী দলে থাকা ডেমোক্র্যাটদের পাশাপাশি ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টির কয়েকজন সিনেটরও হ্যাসপলের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনা করে আসছিলেন।