আবহাওয়া ভালো থাকলে দেশি-বিদেশি সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে আগামী ২৩-২৫ মের মধ্যে যেকোনো একদিন পুঙ্গি রি পরমাণু পরীক্ষাকেন্দ্র ধ্বংস করবেন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। তাঁর এ ঘোষণায় তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। স্বাগত জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়াও।

উন গত এপ্রিলে জানিয়েছিলেন, তিনি এ মাসে পুঙ্গি রি পরমাণু পরীক্ষাকেন্দ্র ধ্বংস করবেন। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সি (কেসিএনএ) গত শনিবার দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রটি ধ্বংসের সুনির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণা করেছে।

কেসিএনএ জানায়, আবহাওয়ার ওপর নির্ভর করে আগামী ২৩-২৫ মের মধ্যে পুঙ্গি রি পরমাণু পরীক্ষাকেন্দ্রের সব পর্যবেক্ষণ স্থাপনা, গবেষণা ইনস্টিটিউট ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা সরিয়ে ফেলা হবে, বিস্ফোরক ব্যবহার করে সুড়ঙ্গগুলো ধ্বংস করে দেওয়া এবং সব প্রবেশপথ সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেওয়া হবে। পরীক্ষাকেন্দ্র ধ্বংসের প্রক্রিয়ায় ‘স্বচ্ছতা’ আনতে স্থানীয় সাংবাদিকদের পাশাপাশি চীন, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও দক্ষিণ কোরিয়ার সাংবাদিকদের সামনে কাজটি করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে পিয়ংইয়ং।

নির্দিষ্ট কয়েকটি দেশের সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানোর ব্যাপারে যুক্তি দেখানো হয়, উত্তর কোরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ‘জনমানবশূন্য গভীর পার্বত্য এলাকায়’ খুব বেশি সাংবাদিকের স্থান সংকুলান করা সম্ভব হবে না। এদিকে উন গত এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার পরমাণু বিশেষজ্ঞদের আমন্ত্রণ জানানোর যে ঘোষণা দিয়েছিলেন, কেসিএনএর গত শনিবারের সংবাদে সে ব্যাপারে কিছু বলা হয়নি।

পরমাণু ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে দা-কুমড়া সম্পর্কের মধ্যে থাকা ট্রাম্প ও উন আগামী ১২ জুন সিঙ্গাপুরে বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন। এর মধ্যে ট্রাম্প সতর্ক করে দিয়েছেন, উত্তর কোরিয়ার দিক থেকে কোনো উসকানিমূলক কর্মকাণ্ড দেখলেই সব আয়োজন বাতিল করে দেওয়া হবে। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এ ঘোষণাও এসেছে, উত্তর কোরিয়া পরমাণু অস্ত্র সমর্পণ করলে দেশটিকে সমৃদ্ধ করে তুলতে সহায়তা করবে যুক্তরাষ্ট্র। এসব কথাবার্তার মধ্যে উত্তর কোরিয়া গত শনিবার পুঙ্গি রি পরমাণু পরীক্ষাকেন্দ্র ধ্বংসের তারিখ ঘোষণা করল। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।