৪ তলা থেকে ফেলে দিয়ে স্ত্রী হত্যাচেষ্টার মামলায় নিউইয়র্ক সিটির ব্রঙ্কসের বাংলাদেশি মোহাম্মদ খায়ের চৌধুরীকে ১৮ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। এই দণ্ডভোগের পর আরো ৫ বছর তাকে কঠোর নজরদারিতে অতিবাহিত করতে হবে ৩০ বছর বয়সী খায়েরকে। জেল থেকে মুক্তি লাভের পর আজীবন সে তার স্ত্রীর আশপাশে যেতেও পারবে না। ব্রঙ্কস ক্রিমিনাল কোর্ট ২ মে এ রায় প্রদান করেছে।

কোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে ডিস্ট্রিক্ট এটর্নীর মুখপাত্র মিস মেলানি ৩ মে এ প্রতিনিধিকে আরো জানান, ২০১৪ সালের ২৪ জুলাই বিকেল ৫টায় ব্রঙ্কসের ১৪১৮ জেরিগা এভিনিউতে অবস্থিত বিল্ডিংয়ের চতুর্থ তলায় সি নম্বর এপার্টমেন্টের বেডরুম থেকে তাহমিনা রহমানকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়া হয়। জানলা দিয়ে পড়ার সময় তাহমিনা দু’তলার ছাদে আটকে যান। তাহমিনার স্বামী খায়ের চৌধুরী তার ঘাড় ধরে জানলা দিয়ে ছুড়ে মারেন বলেও আদালতে প্রমাণিত হয়েছে। তাহমিনাকে মরনাপন্ন অবস্থায় নিকটস্থ হাসপাতালে নেয়া হয়। টানা দু’মাস ছিলেন কোমায়। সে সময় তার স্বামী পুলিশকে জানিয়েছিলেন যে, তাহমিনা আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে লাফ দেন। তাহমিনার জ্ঞান ফিরলে পরিস্থিতি পাল্টে যায়। তদন্ত কর্মকর্তারা জানতে সক্ষম হন যে, তার স্বামী খায়ের চৌধুরীই তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধাক্কা দিয়েছিলেন।

মৌলভীবাজার জেলা সদরের অধিবাসী তাহমিনা এবং তার স্বামীর পরিবার পরস্পরের আত্মীয় এবং অভিভাবকদের আগ্রহেই বিয়ে হয়েছিল।