বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশের ৪৭তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস (বাফলা) এর দুই দিন ব্যাপী ১২তম বাংলাদেশ ডে প্যারেড ২০১৮।

৩১শে মার্চ প্রথম দিনেই ছিল ঐতিহাসিক প্যারেড। লিটল বাংলাদেশের উপর (থার্ডস্ট্রীট এবং নরমেন্ডী থেকে ভারমন্ট হয়ে বেভারলি বুলেবার্ড পর্যন্ত সমগ্র ব্যস্ততম রাস্তা বন্ধ করে এই প্যারেড উদযাপন হয়। দুপুর তিনটায় শুরু হয় বাংলাদেশ প্যারেড। অবসর প্রাপ্ত কর্ণেল ওমর হুদার নেতৃত্বে প্যারেড চালু হয়। প্যারেড মার্শাল হিসেবে ছিলেন কংগ্রেসম্যান জিমি গোমেজ, প্রধান অতিথি প্রখ্যাত ডাক্তার কালী প্রদীপ চৌধুরী (কেসিপি’র চেয়ারম্যান) এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন লস এঞ্জেলেসের কন্সাল জেনারেল প্রিয়তোষ সাহা।

ঘোড়া, ঘোড়ার গাড়ী, দলগত হাডলি ডেভিটসন, ব্যান্ড, বিভিন্ন মটোর ফ্লট সহ বিভিন্ন সংগঠনের র‌্যালী সজ্জিত বিশাল লম্বা প্যারেড মূলধারার মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। রাস্তার দুই পাশে প্যারেড দেখার জন্য অসংখ্য মানুষের ভিড় জমে ওঠে। এবার বেশ কয়েকটি নতুন র‌্যালীর সংযোজন হতে দেখা গেছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা ও গ্রীষ্ম মেলা কমিটি। পাশাপাশি বিএনপির র‌্যালীতে জিয়াউর রহমান ও তারেক রহমানের ছবি বহন করে। বৃহত্তর র‌্যালী ছিল মুনা সংগঠনের। বাংলাদেশ ও আমেরিকার বৃহত্তর পতাকা বাংলাদেশ ডে প্যারেডের মান বৃদ্ধি করে। লস এঞ্জেলেসের প্রথম বাংলাদেশী রেস্টুরেন্ট ও গ্রোসারী আলাদিনের সামনে দিয়ে প্যারেড অতিক্রম করে এবং উক্ত স্টোরের স্বত্তাধিকারী প্যারেডে অংশ গ্রহণকরীদের সরবত ও বিরানীর প্যাকেজ বিতরণ করেন। ভার্জিল মিডল স্কুলের মাঝে গিয়ে শেষ হয় উক্ত প্যারেড।

আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনীতে কংগ্রেসম্যান জিমি গোমেজ আমেরিকার পতাকা উত্তোলন করেন। কন্সুলেট জেনারেল অব লস এঞ্জেলেস প্রিয়তোষ সাহা উত্তোলন করেন বাংলাদেশের পতাকা এবং বাফলার পতাকা উত্তোলন করেন বাফলার প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম।

প্রধান অতিথি কবুতর ও বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। এরপর শুরু হয় বাংলাদেশ ডে ফেস্টিবলের সেমিনার ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। ফেস্টিবল ঘিরে ছিল অসংখ্য স্টলের সমারহ। দেশীয় পণ্য ও খাবারের আকর্ষণীয় স্টলগুলো জমে ওঠে আগত দর্শক ও শ্রোতাদের মাঝে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে স্থানীয় শিল্পীদের সাথে সঙ্গীত পরিবেশন করে শাহ মাহবুব।

দুই দিন ব্যাপী এই অনুষ্ঠানের চমৎকার উপস্থাপনা করেছেন- মিথুন চৌধুরী ও সাদিয়া হক মিমি।

১ এপ্রিল দ্বিতীয় দিনে অগনিত মানুষের ঢল নামে বাংলাদেশ ডে ফেস্টিবলে। এ যেনো এক মিলন মেলা। কেনাকাটার ঢল উপচে পড়ে মানুষের ভীড়ে। পাশাপাশি চলতে থাকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। দ্বিতীয় দিনে উপস্থিত হন বাংলাদেশে কমিউনিটির প্রথম বন্ধু এ্যান্থোনিও ভিলারোগোছা (প্রাক্তন মেয়র অব লস এঞ্জেলেস)। এক যুগে বাংলাদেশ ডে প্যারেডে বাফলা মাত্র দুটি পদক প্রদান করেছে। প্রথমটি পেয়েছেন শাইখ সিরাজ। আর এ বছর ২০১৮তে দ্বিতীয়টি পেলেন ডা: আবুল হাসেম।

উল্লেখ্য, লিটল বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব, লস এঞ্জেলেস বাফলার ক্যাবিনেট সহ মঞ্চ থেকে স্বাধীনতা পদক প্রাপ্ত শায়েখ সিরাজকে অভিনন্দন জানায়, যা চ্যানেল আইয়ের নিউজে দেখানো হয়।

অপরদিকে বাংলাদেশ থেকে আগত জিনাত আরা মুনা ও শুভ্রদেব অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে মঞ্চ মাতিয়ে তোলেন।

উৎসব ও ফেস্টিবল উপলক্ষ্যে প্রকাশিত হয় অপরাজেয় ম্যাগাজিন। সুন্দর ও তথ্যবহুল সংকলন তুলে ধরে বাফলার একযুগের কার্যক্রম। একই ক্যাবিনেট উদযাপন করবে আগামী ২০১৯ সালের বাংলাদেশ ডে প্যারেড। সকলের প্রত্যাশা আরও নতুনত্ব ও ভিন্নতায় উপস্থাপিত হবে সেই প্যারেড।